Breaking News
Home / Uncategorized / বিয়ের আগে যে কাজগুলো করবেন না!

বিয়ের আগে যে কাজগুলো করবেন না!

বিয়ের আগে বর-কনে দু’জনেই দুশ্চিন্তায় ভোগেন। বিশেষ করে নিজেদের চেহারা ঠিক রাখতে সতর্কতা অবলম্বন করে। কিন্তু অনেকে সচেতন হওয়া সত্তেও সঠিক করণীয় সম্পর্কে না জানার জন্যে কোনো ফল পায় না। তাই বিবাহের আগে কি করবেন আর কি করবেন না তা জানা সবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। বিয়ের আগে যা করবেন: ১। বিয়ের ঠিক আগেই নতুন কোনও হেয়ার স্টাইল বা ফেসিয়াল করাবেন না। একান্তই যদি হেয়ার স্টাইল পাল্টাতে চান তবে তা অন্তত দু’সপ্তাহ আগে করিয়ে নিন। এতে আপনার চুলে একটা ন্যাচারাল লুক আসবে। পাশাপাশি, ফেসিয়ালও সেরে ফেলুন মাস দুয়েক আগে। এতে বিয়ের দিনে অন্তত আপনার মুখের লাল লাল ভাবটা আর থাকবে না।

২। বিয়ের আগের কয়েকটা দিন অন্তত নতুন কোনও স্কিনকেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহারের ঝুঁকি নেবেন না। নতুন কোনও ফেস ক্রিম বা মাস্কারা ব্যবহার করতে গিয়ে তার ফল উল্টো হতে পারে। তা আপনার স্কিন টাইপের পক্ষে স্যুটেবল না-ও হতে পারে। ৩। শুধুমাত্র শপিংই নয়, বিয়ের আগে ডায়েটের দিকেও কড়া নজর রাখুন। খুব স্পাইসি বা অয়েলি ফুড এড়িয়ে চলুন। এ ধরনের খাবার খেলে অতিরিক্ত ঘাম বা মাথাধরার মতো সমস্যা হতে পারে। তাই বিয়ের আগে যতটা সম্ভব হাল্কা, কম তেলযুক্ত খাবার রাখুন নিজের ডায়েটে। সেই সঙ্গে ফ্রেশ দেখাতে প্রচুর পরিমাণ জলপান করুন।

৪। বিয়ের আগে যতটা পারবেন নিজে ড্রাইভিং করা এড়িয়ে চলুন। এই সময় একরাশ চিন্তা-ভাবনা আসাটা স্বাভাবিক। ফলে নিশ্চিন্তে ড্রাইভিং করা সম্ভব না-ও হতে পারে। সে ক্ষেত্রে ড্রাইভারের হাতে নিজের গাড়ির স্টিয়ারিং ছেড়ে দিন। ৫। বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে জমায়েত হলেই অতিরিক্ত অ্যালকোহল বা ধূমপান করার দিকে ঝুঁকে পড়েন? বিয়ের আগের কয়েক দিন অন্তত এই অভ্যাস পাল্টে ফেলুন। অ্যালকোহল ইনটেক একটু কমান। কমিয়ে দিন ধূমপান করাও। সঙ্গে কমিয়ে দিন ঠান্ডা পানীয় খাওয়ার ঝোঁকও। দেখবেন, বিয়ের দিনে আপনার শরীর-মন কতটা ঝরঝরে থাকে!

৬। বিয়ের আগে মেকআপ বা ডায়েটের খেয়াল রাখার পাশাপাশি নিজের দাঁতেরও যত্ন নিন। কফি, রেড ওয়াইন, ব্লুবেরি, অ্যাসিডিক ফুড, ব্ল্যাক টি বা টোব্যাকো প্রোডাক্ট থেকে দূরে থাকুন। এতে দাঁত ঝকঝকে সাদা থাকবে। ৭। চোখের নীচে কালির প্রলেপ। ফোলা ফোলা চোখ। বিয়ের অ্যালবামে নিশ্চয়ই এমন ছবি দেখতে চাইবেন না। তাই বিয়ের কয়েকটা দিন অন্তত লেট নাইট পার্টিকে গুডবাই বলুন। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব, ঘুমিয়ে পড়ার চেষ্টা করুন।

ব্রাজিলের বিপক্ষে কথা বলায় মেসিকে লালকার্ড! (ভিডিও)
কোপা আমেরিকার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে চিলির বিপক্ষে লিওনেল মেসির লালকার্ড বিতর্কে জেরবার পুরো ফুটবল দুনিয়া। মেসির লালকার্ড, আলোচনা তো হবেই। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে এর আগে একবারই লালকার্ড দেখেছেন। তাও রেফারির ভুলে। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় লালকার্ডেও রেফারির ভুল খুঁজে পাচ্ছেন অনেকে। চিলির বিপক্ষে ম্যাচের প্রথমার্ধে গ্যারি মেদালের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কির জেরে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয়ে মেসিকে। ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো লালকার্ড দেখা মেসি এতটাই খেপেছেন যে, কনমেবলকে আক্রমণ করতে কোনো পর্দা রাখেননি। এমন বিস্ফোরক মেসিকে আগে কখনো দেখা গিয়েছে কিনা সন্দেহ।

ক্ষুব্ধ মেসি ম্যাচের পর তৃতীয় স্থান বিজয়ীর মেডেল নিতেও আসেননি। লকার রুম থেকেই বের হননি। টুর্নামেন্টে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে তিনি বলেছেন, এটি সাজানো হয়েছে ব্রাজিলের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য। ‘আমি প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ। আমি লালকার্ড পাওয়ার মতো ছিলাম না। কারণ, আমরা ভালো ফুটবল খেলছিলাম।’ ম্যাচের পর বলছিলেন মেসি।‘আমরা এগিয়েছিলাম কিন্তু, যেমনটি আমি সম্প্রতি বলেছি, দুর্ভাগ্যজনকভাবে এখানে অনেক দুর্নীতি হচ্ছে, আর রেফারিরা.। আমরা এই অনুভূতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলাম যে, তারা আমাদের ফাইনালে উঠতে দেবে না। ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচ এবং আজকের (চিলির বিপক্ষে) ম্যাচে আমরা সেরা পারফর্ম করেছি। কিন্তু, আপনি যদি সচেতন হন তাহলে দেখেছেন কি ঘটেছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি মনে করি এখানে কোনো সন্দেহ নেই যে, দুর্ভাগ্যজনকভাবে এটি (ট্রফি) ব্রাজিলের জন্যই প্রস্তুত করা হয়ে। আমার মনে হয়, ভিএআর কিংবা রেফারির কিছুই করার নেই। পেরু প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে কারণ, তাদের দলের জেতার শক্তি আছে কিন্তু আমি তাদের জন্য কাজটা কঠিনই দেখছি। ব্রাজিলের বিপক্ষে ২-০ গোলে হারের পর কনমেবলকে আক্রমণ কর কথা বলেছিলেন মেসি। তুলেছিলেন দুর্নীতির অভিযোগ। আর তারই জেরে তাকে লাল কার্ড দেখতে হয়েছে বলে মনে করছেন আর্জেন্টাইন জাদুকর।

‘আমি এই দুর্নীতির অংশ হতে চাইনি, আমাদের সেটা উচিৎও না। আমি সব সময় সত্য বলে আসছি এবং আমি সৎ, যে বিষয়টি আমাকে শান্তি দেয়। আমার কথায় যদি প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয় তবে সেটা আমার দেখা বিষয় না।’ বলছিলেন মেসি।’আমি মনে করি, আমার মনে হয়, আগে (ব্রাজিলের বিপক্ষে) যা বলেছিলাম তার প্রতিক্রিয়াতেই এই ঘটনা ঘটেছে (লাল কার্ড দেখানোর দিকে ইঙ্গিত করে)। সেদিন আমি যা বলেছিলাম তার প্রতিক্রিয়াই আমার দিকে ফিরে এসেছে। অথচ, একটা হলুদ কার্ডেই সবকিছুর সমাধান হয়ে যেতে পারতো।’

মেসির সঙ্গে একমত লালকার্ডের ঘটনায় জড়িত থাকা চিলি ডিফেন্ডার গ্যারে মেদালও। দুজনকেই শনিবারের ম্যাচের ৩৭ মিনিটে লালকার্ড দেখিয়ে বের করে দেয়া হয়। মেসি হলুদ কার্ডের কথা বললেও মেদালের মতে, ওই ঘটনায় হলুদ কার্ডও আশা করা যায় না। ‘আমি মেসির সঙ্গে একমত। আমি এমনকি হলুদ কার্ডের কথাও চিন্তা করিনি।’ বলছিলেন মেদাল। ‘সেখানে কিছুটা ধাক্কাধাক্কি হয়েছে টিকই, কিন্তু ওই পর্যন্তুই। রেফারি আরো ভালোভাবে বিষয়টির সমাধান করতে পারতেন।’মেসির লালকার্ডের মানে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্রথম ম্যাচই তিনি খেলতে পারছেন না। তবে ম্যাচের পর রাগে-ক্ষোভে আগ্নেয়গিরি হয়ে থাকা মেসি হয়তো এসব কিছু মাথায়ই রাখেননি। কনমেবলের উপর তিনি যেভাবে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন তাতে শাস্তিটা আরো বড় হতেই পারে। ভিএআর নিয়ে কিছুটা হতাশ হতেই পারে আর্জেন্টিনা। ব্রাজিলের বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরে যাওয়া সেমির ম্যাচটিতে কয়েকটি ব্যাপারে ভিএরআরের সাহায্য নিতেই পারতেন মূল রেফারি। রোববার কোপা আমেরিকার ফাইনালে ব্রাজিলের মুখোমুখি হবে পেরু।

About admin

Check Also

আরো ১৩০০ পর্ন সাইট বন্ধ করা হবে: তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী!

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তফা জব্বর বলেছেন, আরো ১ হাজার ৩১৪টি পর্ন সাইট বন্ধের উদ্যোগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *